“নজরুল তুমি”

প্রকাশিত: ৪:০৭ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৮, ২০২০

তুমি বিপদ-কূলের শঙ্ক,
তুমি পৃথ্বীর কঠিন অঙ্ক;
তুমি হিমালয়ের উঁচু শৃঙ্গ,
তুমি নাৎসী দলের ব্যঙ্গ!

তুমি হৃষ্ট পুষ্ট মানব,
তুমি হন্ত দন্ত দানব;
তুমি বিশৃঙ্খলের সর্ব,
তুমি অনিয়মের গর্ব!

শতাব্দীর সেরা হুঙ্কার,
তীর ধনুকের ঢঙ্কার;
মগজে মসির ধার,
ধারোনি কারো দ্বার!

রাইফেলের বিকট শব্দ,
শত্রু হয়েছে জব্দ;
গ্রেনেডের ক্ষুদ্র পিন,
তুমি পৃথিবীর বড় ঋণ!

তুমি হৃদয় দোলানো প্রেমিক,
তুমি সমাজের শুদ্ধ সেবিক;
তুমি ন্যায়ের স্বচ্ছ পত্র,
তুমি মায়া মমতার পাত্র!

তুমি কালোকেশীর দীঘল চোখ,
তুমি অনাহারীর মায়া মুখ;
তুমি নিপীড়িতের অগ্র নেতা,
তুমি পথশিশুর হাসির ক্রেতা!

পাহাড়ের ঝর্ণা ধারায়,
অশ্রুজল ধুয়ে মুছে যায়;
তুমি সেনা তাবুর বোকা,
তুমি মায়ের কোলের খোকা!

মরুভূমির শীতল সন্ধ্যা,
তুমি রাতের রজনীগন্ধা;
পাথরের নিকষ কালো,
তুমি জগৎময় সিক্ত আলো!

তুমি বিদ্রোহী তুমি ঝঞ্ঝা,
তুমি আগুনের ফুলকির ধঞ্চা;
তুমি বানের প্রচন্ড স্রোত,
তুমি অন্যায়ের যমদূত!

তুমি বিদ্রোহী মসির কালি,
তুমি ধরার উত্তপ্ত বালি;
তুমি তরুণের টগবগে রক্ত,
তুমি জালিমের হীতে শক্ত!

ভেদিয়া আকাশের বুক,
ছিড়িয়া বিধাতার চোখ;
পৃথিবীর বুকের বিস্ময়,
তুমি বিদ্রোহী তুমি তন্ময়!

তুমি ত্রিশূলের তিন ফলা,
তুমি অগ্নুৎপাতের গোলা;
তুমি ধর্মরাজের দন্ড,
তুমি ঝড়, তুমি লন্ডভন্ড!

তুমি সাম্যবাদের কর্মী,
তুমি ঊর্মিলা, তুমি শর্মী;
তুমি নদীর এপার ওপার,
তুমি সমতার হাতিয়ার!

তুমি জলোচ্ছ্বাসের ঢেউ,
তুমি অপরিচিত কেউ;
তুমি পাথরের মতো শক্ত,
তুমি ন্যায়ের কঠিন ভক্ত!

তুমি ঘনীভূত মেঘের শীলা,
তুমি ধরণীর ভয়ঙ্কর লীলা;
তুমি বজ্রপাতের বিকট শব্দ,
তুমি তুফানের পথ করো রুদ্ধ!

তুমি বাবরি দোলানো চুল,
তুমি মিষ্টি ছন্দের বোল;
তুমি খুকুমণির ভাবনা,
তুমি মহাসাধকের সাধনা!

তুমি মহাকালের সূক্ষ্ম ধারণা,
তুমি এঁকে গেছো পদচারণা;
তুমি রেখে গেছো স্মৃতি অকূল,
তুমি নেই তাই মহাকাল ব্যাকুল!

তুমি রবে হৃদয়ের গভীর চিত্তে,
তুমি রবে ঝুম বৃষ্টির ছন্দ নৃত্যে;
তুমি আছো বাংলার প্রতি কোণে,
তুমি থাকবে শত্রুর মনে মনে!

তুমি দিয়ে গেছো ভয়,
তুমি করে গেছো জয়;
তুমি পেয়েছো শান্তির সমাধি,
বিদ্রোহী, তুমি বিশাল পরিধি!

লেখক: নাজিউর রহমান রাকিব